Home » অর্থ-বাণিজ্য » ঝুঁকি বেশি, তাই সুদও বেশি
17

ঝুঁকি বেশি, তাই সুদও বেশি

প্রথম আলো: সার্বিকভাবে দেশের বাজারে ক্রেডিট কার্ডের সংখ্যা কত? সেখানে আপনার ব্যাংকের অবস্থান কোথায়?

নাজমুর রহিম: বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী সার্বিকভাবে বললে বর্তমানে দেশের ক্রেডিট কার্ডের সংখ্যা সোয়া ৯ লাখের মতো। আর লেনদেনের পরিমাণ প্রায় চার হাজার কোটি টাকা। সেখানে ব্র্যাক ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ডের সংখ্যা প্রায় এক লাখ পাঁচ হাজার। ক্রেডিট কার্ডের বাজারে আমাদের আউট স্ট্যান্ডিংয়ের পরিমাণ ৩৬০ কোটি টাকার মতো।

সেই হিসাবে ক্রেডিট কার্ডের বাজারে আমাদের ব্যাংকের অংশীদারত্ব প্রায় ৯ শতাংশ। তবে ক্রেডিট কার্ডে খেলাপি ঋণের দিক থেকে আমরা অনেক ভালো অবস্থানে রয়েছি। ক্রেডিট কার্ডে আমাদের খেলাপির পরিমাণ ৫ দশমিক ৬৭ শতাংশের মতো।

প্রথম আলো: ব্যবহারকারীদের দিক থেকে সব সময় বলা হয়, ক্রেডিট কার্ডের মাশুল অনেক বেশি। এমনও অভিযোগ শোনা যায়, ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে অনেক অঘোষিত মাশুল (হিডেন চার্জ) আদায় করা হয়। এ বিষয়ে আপনার অভিমত কী?

নাজমুর রহিম: সব সময় হিডেন চার্জের কথাটি আমরা শুনি। কিন্তু এটির কোনো বাস্তবতা নেই। কারণ, আমরা ক্রেডিট কার্ডে যত ধরনের মাশুল ও যে হারে সুদ আদায় করা হয়, তা গ্রাহককে অবগত করেই করে থাকি। এখানে লুকিয়ে কিছুই করা হয় না বা করার সুযোগ নেই।

যখন আমরা একজন গ্রাহককে ক্রেডিট কার্ড বরাদ্দ করি, তখন গ্রাহককে একটি ফরম পূরণ করতে হয়। সেখানে সুদসহ অন্যান্য মাশুলের বিষয় সুস্পষ্ট উল্লেখ থাকে। হয়তো অনেক গ্রাহক তা দেখেন না। এ জন্যই হয়তোবা ব্যাংককে দায়ী করেন। কিন্তু এ কথা বলতে পারি, ক্রেডিট কার্ডে আমরা অঘোষিত কোনো মাশুল আদায় করি না।

প্রথম আলো : কিন্তু এ কথা তো সত্য, ক্রেডিট কার্ডে সুদের হার অনেক বেশি। একেক ব্যাংকে এ হার একেক রকম। এ বিষয়ে কী বলবেন?

নাজমুর রহিম: যেকোনো ধরনের ভোক্তা ঋণের চেয়ে ক্রেডিট কার্ডের সুদ হার বেশি, এ কথা সত্য। কিন্তু এর পেছনে যথেষ্ট যুক্তিযুক্ত কারণও রয়েছে। ক্রেডিট কার্ড হচ্ছে মূলত একধরনের অতি স্বল্পমেয়াদি ঋণ। ব্যাংক খাতে অন্য যেসব ভোক্তা ঋণ রয়েছে, সেগুলো অনেক ক্ষেত্রে মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি। ব্যাংকে ঋণের মেয়াদ যত কম হবে, সুদ তত বেশি হবে, এটাই রীতি।

এ ছাড়া যেকোনো ধরনের ভোক্তা ঋণের ক্ষেত্রে জামানত রাখা হয়। তাই সেখানে কেউ ঋণখেলাপি হলে জামানত থেকে তা সমন্বয় করা যায়। কিন্তু ক্রেডিট কার্ডের ঋণ পুরোপুরি জামানতহীন। গ্রাহকের আয় ও সামাজিক অবস্থান বিবেচনায় এ কার্ড দেওয়া হয়। এ ক্ষেত্রে ব্যাংক ঝুঁকি নিয়ে অনিরাপদ ঋণ দিয়ে থাকে। যে ব্যবসায় যত বেশি ঝুঁকি, রিটার্নও তত বেশি ধরা হয়। ব্যাংকের অন্যান্য ঋণ ব্যবসার চেয়ে ক্রেডিট কার্ড ব্যবসার পেছনে ব্যাংকের পরিচালন ব্যয় বা বিনিয়োগ বেশি। যেসব কার্ড সেবা আমরা বিদেশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান (ভিসা, মাস্টারকার্ড, আমেরিকান এক্সপ্রেস) থেকে নিই, সেখানে বেশ কিছু খরচ আছে। এসব কারণে ক্রেডিট কার্ডে সুদের হার বেশি।

প্রথম আলো: সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক এ বিষয়ে একটি নীতিমালা জারি করেছে। সেখানে সুদের হারের একটি সীমা নির্ধারণের কথা বলা হয়েছে। বর্তমানে দেশে ক্রেডিট কার্ডের সুদ হার কত?

নাজমুর রহিম: বর্তমানে আমাদের দেশে ব্যাংকভেদে ক্রেডিট কার্ডের সুদ হার ১৮ থেকে ৩৬ শতাংশ। বাংলাদেশ ব্যাংক সম্প্রতি যে নীতিমালা দিয়েছে, সেখানে বলা হয়েছে, ক্রেডিট কার্ডের সুদ হার ব্যাংকের ভোক্তা পর্যায়ের যেকোনো ঋণের সুদের চেয়ে ৫ শতাংশের বেশি হতে পারবে না। এটি পরিপালন হলে আমাদের কার্ডের সুদ হার ২৫ শতাংশের মতো হতে পারে। আমাদের ব্যাংকে সাড়ে ১৯ শতাংশ সুদের ভোক্তা ঋণও রয়েছে।

প্রথম আলো: ব্র্যাক ব্যাংকে বর্তমানে কত ধরনের ক্রেডিট কার্ড রয়েছে? কার্ড নিয়ে আপনাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?

নাজমুর রহিম: বর্তমানে আমাদের ব্যাংক ভিসা, মাস্টারকার্ড ও জেসিবি—এ তিন ধরনের কার্ড ইস্যু করে থাকে। এর মধ্যে ভিসা ও মাস্টারকার্ড বেশি ইস্যু করছি। এসব কার্ডের মধ্যে আবার সিলভার, গোল্ড, প্লাটিনাম ও সিগনেচার—এ চারটি ধরন রয়েছে। আয় বিবেচনায় একেক গ্রাহককে একেক ধরনের কার্ড দেওয়া হয়ে থাকে। আর আমাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা হচ্ছে কার্ডের সংখ্যা বাড়ানোর চেয়ে লেনদেনের পরিমাণ বাড়ানো। এ জন্য আমরা তথ্যপ্রযুক্তির সর্বোচ্চ সুবিধা গ্রহণের মাধ্যমে সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর।

প্রথম আলো: কার্ডের জাল–জালিয়াতির ঘটনা কতটা কমেছে?

নাজমুর রহিম: কার্ডের নিরাপত্তা বাড়াতে নতুন করে চিপস ব্যবস্থা চালু করা হয়। এর ফলে আগের চেয়ে নিরাপত্তা অনেক বেশি সুরক্ষিত হয়েছে। তবে এ ক্ষেত্রে গ্রাহক–সচেতনতাও জরুরি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

14

বাড়ছে গ্রাহক, বাড়ছে ব্যবসা

Sharing is caring!FacebookTwitterGoogle+Pinterestবেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত মেহরাব হোসেন সদ্য বিবাহ করেছেন। ব্যাচেলর জীবন ছেড়ে বউসহ ...