Home » শীর্ষবার্তা » রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাপানের মুখে কেন কুলুপ?
aa

রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাপানের মুখে কেন কুলুপ?

মিয়ানমারের রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকট জাপানকে কিছুটা অস্বস্তির মুখে ফেলেছে। জাপান সরকার মানবিক এই সংকট নিয়ে এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক কোনো বিবৃতিই দেয়নি। সরকারের নেতারাও বলা যায় মুখে কুলুপ এঁটে বসে আছেন। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে গত সপ্তাহে যে ভাষণ দিয়েছেন, তার পুরোটাই ছিল উত্তর কোরিয়ার জুজুর ভয় থেকে জাপানকে রক্ষায় দেশটির বিরুদ্ধে ইরাক কিংবা লিবিয়ার মতো আরেকটি সর্বগ্রাসী হামলা চালানোর যৌক্তিকতার ব্যাখ্যা। রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কোনো জায়গা সেই ভাষণে হয়নি। যদিও জাতিসংঘ মহাসচিবের পাশাপাশি বিশ্বের অগ্রসর বেশ কয়েকটি দেশের নেতারা রোহিঙ্গাদের প্রতি মিয়ানমার সরকারের আচরণকে কেবল মানবাধিকার লঙ্ঘন নয়, একই সঙ্গে গণহত্যা এবং জাতিগত নিধনের সর্বশেষ দৃষ্টান্ত বলে আখ্যায়িত করেছেন।
জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এশিয়ার একটি দেশের সংখ্যালঘু জাতিসত্তার মানুষের মানবাধিকার লঙ্ঘিত হওয়ার ন্যক্কারজনক সেই দৃষ্টান্তের কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া দেখায়নি। নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হিসেবেও রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিয়ে আলোচনায় জাপান এখন পর্যন্ত কোনো ভূমিকা রাখেনি। এর ফলে সমস্যা নিয়ে জাপান যে অস্বস্তির মধ্যে আছে, তা সহজেই অনুমান করা যায়। মিয়ানমার নিয়ে জাপানের অস্বস্তির পেছনে প্রধান কারণ হচ্ছে প্রাকৃতিক সম্পদসমৃদ্ধ দেশটিতে জাপানের সরকারি ও বেসরকারি খাতের বিপুল বিনিয়োগ। মিয়ানমারের আংশিক গণতন্ত্রায়ণ কার্যকর হওয়ার আগে থেকেই পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে লাভবান হওয়ার আশা নিয়ে বিনিয়োগে জাপান এগিয়ে যায়। সম্ভবত সেই ভাবনা থেকেই উটকো কোনো মন্তব্য করে অর্থনৈতিক সম্পর্কের সেই দিকটির কোনো রকম ক্ষতি করতে চাইছেন না জাপানের নেতারা। তাই মাঠপর্যায়ে ঠিক কী ঘটছে, সেদিকে নজর না দেওয়াকেই বুদ্ধিমানের কাজ বলে তাঁরা হয়তো ধরে নিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ee

হাঁকডাক দিয়ে ইলিশ বিক্রি

Sharing is caring!FacebookTwitterGoogle+Pinterestপটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলায় রাবনাবাদ নদ ও বঙ্গোপসাগরে জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ছে। ...